প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ প্রার্থীদের জন্য গুরুত্বপুর্ণ কিছু তথ্য

0
589

প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক নিয়োগ প্রার্থীদের জন্য গুরুত্বপুর্ণ কিছু তথ্য

আমরা সবাই জানি প্রাথমিক সহাকারি  শিক্ষক নিয়োগ ২০২০ প্রকাশিত হয়েছে । ২৫ অক্টোবর হতে ২৪ নভেম্বর ২০২০ পর্যন্ত অনলাইনে  আবেদন করা যাবে । অনলাইনে আবেদন করতে গিয়ে অনেকেই বিভিন্ন সমস্যায় পড়েন । তাই আজকে আমরা প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক নিয়োগে আবেদন করার কিছু সাধারন নিয়ামাবলী ও প্রয়োজনীয় তথ্যগুলো দেখে নিব ।

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ আবেদনের ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় তথ্য

*  আবেদন যোগ্যতা- সহকারী শিক্ষক পদে পুরুষ ও নারী উভয়ের ক্ষেত্রেই শিক্ষাগত যোগ্যতা স্নাতক করা হয়েছে।যেকোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক বা অনার্স অথবা সমমানের ডিগ্রি হতে হবে।

* স্নাতক বা সমমানের পরীক্ষায় কমপক্ষে দ্বিতীয় শ্রেণি/ বিভাগ বা জিপিএ ২.০০ থাকতে হবে।

* প্রাইমারিতে আবেদন করতে হলে ২০ অক্টোবর ২০২০ তারিখে সর্বনিম্ন বয়সসীমা ২১ বছর এবং ২৫ মার্চ ২০২০ তারিখে সর্বোচ্চ ৩০ বৎসর (কোটার জন্য ৩২ বছর)

* আবেদন করতে হবে অনলাইনে, আবেদন ফি ১১০ টাকা পরিশোধ করতে হবে টেলিটকের মাধ্যমে।

* নিজে আবেদন করতে না পারলে কোন প্রফেশনাল/ দোকানে গিয়ে আবেদন করুন।

আরো পড়ুন:- প্রাইমারি সহকারী শিক্ষক নিয়োগের অনলাইনে আবেদন ও পেমেন্ট পদ্ধতি

* আবেদন করার ৭২ ঘন্টার মধ্যে আবেদন ফি পরিশোধ করতে হবে। এমনকি যারা আবেদনের শেষ তারিখ ২৪ নভেম্বর আবেদন করবেন তারাও তার ৭২ ঘন্টার মধ্যে আবেদন ফি পরিশোধ করতে পারবেন।

*  আবেদন করার পর কোন ভুল ধরা পড়লে আবার নতুন করে আবেদন করুন এবং আবেদন ফি পরিশোধ করুন।

*  আবেদন করার পর আবেদন ফি পরিশোধ করে ফেললে নতুন করে আবেদন করতে পারবেন না।

  • * অবশ্যই সকল তথ্য আপনার সার্টিফিকেট অনুয়ায়ী হতে হবে। আবেদন সাবমিট করার পর যদি মনে হয় কোন জায়গায় ভুল আছে তাহলে টাকা জমা না দিয়ে নতুন করে আবার আবেদন করে টাকা জমা দিবেন। মনে রাখবেন একবার টাকা জমা দিয়া দিলে আর কোন পরিবর্তন করতে পারবেন না।
  • * নিজে নিজে আবেদন না করতে পারলে অভিজ্ঞ কাউকে দিয়ে আবেদন করান। আর কোন দোকান থেকে আবেদন করলে অবশ্যই সবকিছু নিজে ভালোমত চেক করে নিবেন টাকা জমা দেওয়ার আগে।

*আবেদনের শেষ তারিখ পর্যন্ত অপেক্ষা না করে যতদ্রুত সম্ভব আবেদন করে নিবেন। কেননা শেষের দিকে সাইটে অনেক জামেলা করতে পারে।

*  জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর বাধ্যতামূলক নয়। আপনার যদি আইডি কার্ড থাকে তাহলে তা দিন। না থাকলে “নো” অপশন সিলেক্ট করুন।

*  আপনার স্থায়ী ঠিকানা যেটা দিবেন সেখানেই পরীক্ষা হবে এবং আপনার নিয়োগও সেখানেই হবে।

আরো জানুন:- যেভাবে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের প্রস্তুতি নিবেন (সাজেশন ও মানবন্টন সহ)

* শুধুমাত্র মৌখিক পরীক্ষার প্রবেশপত্র ডাকযোগে পাঠানো হবে। বাকি সকল কার্যক্রম অনলাইনে হবে।

* মৌখিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার পর আপনার স্থায়ী ঠিকানায় পুলিশ ভেরিফিকেশন হবে। সুতরাং স্থায়ী ঠিকানা সঠিক ও নির্ভুল দিন।

* আবেদন করার পর মেসেজ হারিয়ে ফেললে ওয়েব সাইট থেকে আপনার ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড রিকভারি করে লিখে রাখুন।


* এপ্লিকেন্ট কপিটি সংরক্ষণ করুন। মৌখিক পরীক্ষার সময় এটি প্রয়োজন হবে। এটি পরবর্তীতে আবারও ডাউনলোড করা যাবে।

* পরীক্ষার তারিখ হলে এবং প্রবেশপত্র ডাউনলোডের জন্য আপনাকে আপনার দেয়া মোবাইল নম্বরে এসএমএস করে জানানো হবে।

* সকল জেলায় একসাথে পরীক্ষা হবে না। কয়েকটি জেলা করে কয়েকটি ধাপে পরীক্ষা হবে।

* আপনার পরীক্ষা আপনার স্থায়ী ঠিকানা অনুসারে (আপনার নিজ জেলায়) হবে।

* বিবাহিত মহিলারা তার স্বামী অথবা বাবার স্থায়ী ঠিকানা ব্যবহার করতে পারবেন। নিয়োগ স্থায়ী ঠিকানায় হবে। আপনি যে ঠিকানায় চাকরী নিতে চান অনলাইনে আবেদনের সময় সেই ঠিকানা স্থায়ী ঠিকানা হিসাবে দিতে হবে।

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের জন্য বাজারে অসংখ্য বই আছে, তাদের মধ্যে যেটা ভালো মনে করেন সেটা পড়তে পারেন (চাইলে প্রফেসর পড়তে পারেন বা অন্যকোনটা)। বিগত সময়ের সকল প্রশ্নের সমাধান করলে আপনার প্রস্তুতি ৮০% সম্পন্ন হয়ে যাবে। এছাড়া ৪র্থ ও ৫ম শ্রেণির গণিত ও সাধারণ জ্ঞানের উপর ভালো দখল রাখুন।

সুত্র : ইন্টারনেট

ইউটিউবে আমাদের সাথে সংযুক্ত হতে আমাদের চ্যানেলটি এখনি সাবস্ক্রাইব করে রাখুন।

primary-teacher-job-information

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here